চাকরি না পেয়ে হতাশ যুবক, ছিঁড়ে ফেললেন একাডেমিক সার্টিফিকেট | todaybd24.com
মঙ্গলবার , ২০ সেপ্টেম্বর ২০২২ | ২৫শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯
  1. অন্যান্য
  2. আন্তর্জাতিক
  3. আয় করুন
  4. আলোচিত সংবাদ
  5. খুলনা
  6. খেলাধুলা
  7. চট্টগ্রাম
  8. জাতীয়
  9. জেলার খবর
  10. টিপস
  11. ঢাকা
  12. তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি
  13. ধর্ম
  14. নিউজ
  15. পরিবার
esenler korsan taksi
সর্বশেষ খবর টুডে বিডি ২৪ গুগল নিউজ চ্যানেলে।
   

চাকরি না পেয়ে হতাশ যুবক, ছিঁড়ে ফেললেন একাডেমিক সার্টিফিকেট

                                           প্রতিবেদক
টুডে বিডি ২৪
সেপ্টেম্বর ২০, ২০২২ ১১:৩৪ পূর্বাহ্ন

Advertisements

বাদশা মিয়া। নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের দক্ষিণ সুন্দর খাতা গ্রামের বাসিন্দা মহুবার রহমানের ছেলে। ছয় ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড় তিনি।

Advertisements
Advertisements
আরও পড়ুন:  ইমোতে মেয়ে সেজে লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করতেন এই তিন তরুণ
Advertisements
Advertisements

তাদের পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি বাবা। অভাব অনটনের মধ্যেও স্নাত্তক পাশে করেছেন। আর্থিক সমস্যা বেশি হওয়ায় স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করতে পারেন নি।

Advertisements
Advertisements

আটজনের পরিবারের মধ্যে সাবার বড় বাদশা। ইচ্ছে ছিলো স্নাতক সম্পন্ন করে পরিবারের হাল ধরবে। দীর্ঘ সময় চেষ্টার পরও চাকরি না আর হলো না। সেই ক্ষোভে একাডেমিক সব সনদপত্র ছিঁড়ে ফেলেছেন তিনি।

সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক লাইভে শিক্ষা জীবনে অর্জিত সব একাডেমিক সনদপত্র ছিঁড়ে ফেলেন তিনি। ফেসবুক লাইভে বাদশা বলেন, আসলে আমার ভাগ্যটাই খারাপ।

কত মানুষ ভুয়া সার্টিফিকেট নিয়া করে খাচ্ছে। আর আমি এত সার্টিফিকেট নিয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরেও একটা সরকারি বা বেসরকারি চাকরি জোটাতে পারিনি। সনদপত্র অনুযায়ী চাকরির বয়স শেষ, এখন এগুলো রেখে লাভ কী? বয়স থাকতেই তো চাকরি জোটাতে পারিনি।

বাদশা আরও বলেন, আমার বাবা খেয়ে না খেয়ে আমাকে লেখাপড়া শিখিয়েছেন। বাড়িতে বৃদ্ধ বাবা-মা ও ছোট ভাই-বোনদের মুখের দিকে তাকাতে পারি না। বর্তমান সমাজে সবচেয়ে অসহায় মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের শিক্ষিত ছেলেরা। এরা না পারে চাকরি জোটাতে, আবার না পারে অর্থের অভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য করতে।

বাদশার বাবা মহুবার রহমান বলেন, চাকরির বয়সসীমা শেষ হওয়ায় বেশ কিছু দিন থেকে হতাশায় ভুগছিল বাদশা। দিন দিন হতাশা বেড়ে যাওয়ায় সে তার একাডেমিক সার্টিফিকেটগুলো কাউকে না জানিয়ে ছিঁড়ে ফেলেছে। প্রসঙ্গত, বাদশা পাঙ্গা চৌপতি আব্দুল মজিদ দাখিল মাদরাসা থেকে ২০০৭ সালে

জিপিএ ৩.৯২ পেয়ে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে দাখিল, ২০০৯ সালে সোনাখুলি মুন্সিপাড়া কামিল মাদরাসা থেকে জিপিএ ৪.০৮ পেয়ে আলিম এবং ২০১৪ সালে নীলফামারী সরকারি কলেজ থেকে পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন। তবে অর্থের অভাবে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করতে পারেননি তিনি।

সর্বশেষ - রাজনীতি

//waufooke.com/4/5519413
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
izmit escort kadıköy escort ataşehir escort rize escort uşak escort amasya escort samsun escort ankara escort diyarbakır escort
sincan evden eve nakliyat