ম্যাচ হারের পর যা বললেন মমিনুল

অবিশ্বাস্যভাবে চট্টগ্রাম টেস্টের ফলটা বাংলাদেশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজরা। শেষদিনে মায়ার্সের অতিমানবীয় ব্যটিংয়ের কাছে হার মেনেছে স্বাগতিকরা। এমনটা হবে ভাবতেই পারেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। ম্যাচ শেষেও তার চোখেমুখে ঘোর।

মুমিনুল বলেন, আসলে অবিশ্বাস্য। ক্রিকেট যেহেতু গোল বলের খেলা, অবিশ্বাস্য অনেককিছুই হয়ে যায়। প্রত্যাশা করিনি এমন কিছু হবে। কোন সময়ই আমার মনে হয়নি আমরা হারবো। কারণ ৪দিন আমরা ডমিনেট করেছি। মনেই হয়নি শেষের দিকে এসে আমরা হেরে যাবো। আমার কাছে মনে হয় বোলাররা ভালো জায়গায় বল করতে পারেনি। ওদের ব্যাটসম্যানরা ভালো ব্যাটিং করেছে।

তবে হারের জন্য নির্দিষ্ট কারো কাঁধে দোষ চাপাতে রাজি নন অধিনায়ক। দায়টা পড়ুক পুরো দলের কাঁধেই।

মুমিনুল হক বলেন, টিম হারা মানে পুরো দলের হারা। এখানে আপনি একক কোন ব্যক্তির দোষ দিতে পারেননা। টিম হারা মানে সবাই হারা, জেতা মানে সবাই জেতা।

ইনজুরিতে পড়ে ৩য় ও ৪র্থ ইনিংসে ব্যাটিং-বোলিং কোনটিই করতে পারেননি তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সমর্থকদের মতো অধিনায়কেরও মনে হয়, সাকিব থাকলে ম্যাচের ফলাফলটা অন্যরকম হতেও পারতো!

টেস্ট অধিনায়ক বলেন, সাকিব ভাই থাকলে বোলিংটা একটু গোছানো হতো। উনি যেহেতু সিনিয়র বোলার, সবাইকে আগলে রাখতে পারতো। উনি থাকলে আমার জন্য কাজটা একটু সহজ হতো। ওনাকে অবশ্যই মিস করেছি। ক্যাপ্টেন হিসেবে ওনাকে আগে পাইনি। এবারই প্রথম পেলাম। উনি ছাড়াও যারা ছিল, নাঈম-তাইজুল-মিরাজ ওরাও ক্যাপাবল ছিল ম্যাচ জেতানোর জন্য। মোস্তাফিজও ছিল। একটু ভালো লেংথে বল করতে পারলে আসলে ম্যাচটা জেতা যেত।

হারের জন্য সবচেয়ে বেশি কি দায়ী? মিস ফিল্ডিং, দুরদর্শীতার অভাব, উইকেট নাকি অনভ্যস্ততা? প্রশ্নের উত্তরটা নিজেও ঠিকমতো দিতে পারলেন না মুমিনুল।

তিনি বলেন, আমরা হয়তো বিশ্বাস করিনি এমন কিছু হতে পারে। অনেকদিন পর খেলতে নেমেছি এটাও হতে পারে। কিছু চান্স ছিল সেগুলো নিতে পারলেও আসলে মোমেন্টামটা চেইঞ্জ হতে পারতো। এই উইকেটে একবার সেট হয়ে গেলে আউট করা কঠিন। ওদের ২ ব্যাটসম্যান দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছে। বিশেষ করে শেষ ইনিংসে ডাবল সেঞ্চুরি করা তো সহজ কথা না! অবিশ্বাস্য খেলেছে ওরা।

১ম ম্যাচে হেরে দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। শেষ ম্যাচের আগে তাই ভুল থেকে শিক্ষা নিতে চায় স্বাগতিকরা।

মুমিনুল বলেন, ম্যাচ হেরে গেলে ঘুরে দাঁড়ানোর পরিকল্পনা তো আপনাকে করতেই হবে। সেটা ব্যাটিং বলেন, বোলিং বলেন, ফিল্ডিং বলেন সবক্ষেত্রেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *