পিস্তল কেড়ে নিয়ে আমেরিকা প্রবাসীকে হত্যা করে তারা | টুডে বিডি ২৪
বৃহস্পতিবার , ৫ মে ২০২২ | ১৮ই আশ্বিন ১৪২৯
  1. অন্যান্য
  2. আন্তর্জাতিক
  3. আয় করুন
  4. আলোচিত সংবাদ
  5. খুলনা
  6. খেলাধুলা
  7. চট্টগ্রাম
  8. জাতীয়
  9. জেলার খবর
  10. টিপস
  11. ঢাকা
  12. তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি
  13. ধর্ম
  14. নিউজ
  15. প্রেরণা
সর্বশেষ খবর টুডে বিডি ২৪ গুগল নিউজ চ্যানেলে।
   

পিস্তল কেড়ে নিয়ে আমেরিকা প্রবাসীকে হত্যা করে তারা

                                           প্রতিবেদক
News Desk
মে ৫, ২০২২ ১০:৫২ পূর্বাহ্ণ

বগুড়ায় পিস্তল কেড়ে নিয়ে আমেরিকা প্রবাসী আবদুর রাজ্জাক সরকারকে গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয়। গোলাগুলির সময় জনি, আল আমিন ও মহিষবাথান গ্রামের টাইলস মিস্ত্রি আবদুল হান্নান (৪৫) নামে এক পথচারী গুলিবিদ্ধ হন।

হত্যাকাণ্ডের পর পালিয়ে যাওয়ার সময় মঙ্গলবার রাতে তাদের শহরের দত্তবাড়ি এলাকায় প্রাইভেটকার থামিয়ে চিহ্নিত সন্ত্রাসী ওমর খৈয়াম সরকার রূপম ওরফে হাতকাটা রূপম (৪৫) ও তার দুই সহযোগীকে গ্রেফতার করে পুলিশ।গ্রেফতার অন্য দুইজন হলো- গুলিবিদ্ধ হিফযুল হক জনি (২৬) ও আল আমিন (২২)। এ সময় ব্যবসায়ীর কাছে ছিনিয়ে নিয়ে গুলি করা একটি বিদেশি পিস্তল পাওয়া যায়।

বুধবার বিকালে সদর থানার এসআই ওসমান গণী তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা করেছেন।

বগুড়া সদর থানার ওসি সেলিম রেজা জানান, ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, গ্রেফতার তিনজনসহ ৬-৭ জন হত্যাকাণ্ডে অংশ নিয়েছিল।

তিনি জানান, মঙ্গলবার রাত পৌনে ১টার দিকে বগুড়া সদর উপজেলার শেকেরকোলা ইউনিয়নের মহিষবাথান তিনমাথা এলাকায় তাকে কুপিয়ে ও পিস্তল কেড়ে নিয়ে গুলি করে হত্যা করে। এরপর তারা একটি প্রাইভেটকারে শহরে আসে। শহরের দত্তবাড়ি মোড়ে সদর থানা পুলিশ বেপরোয়া গতির কারটি থামিয়ে তল্লাশি করে। তখন কারে একটি বিদেশি পিস্তলসহ রূপম ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করা হয়।

ওসি জানান, রূপমসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা হয়েছে। নিহতের পরিবার থেকে হত্যা মামলা হলে অপর আসামিদের গ্রেফতার করা হবে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, নিহত আবদুর রাজ্জাক সরকার বগুড়া সদর উপজেলার মহিষবাথান গ্রামের মৃত আবদুল লতিফ সরকারের ছেলে। তিনি আমেরিকার নাগরিকত্ব পেয়ে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে সেখানে বসবাস করতেন। বগুড়া শহরের ইয়াকুবিয়া স্কুল মোড় এলাকায় বাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও গ্রামে অনেক জমি রয়েছে। কিছুদিন আগে আবদুর রাজ্জাকের মা মারা যান।

মঙ্গলবার ঈদের দিন রাতে তিনি বগুড়া শহর থেকে মহিষবাথান গ্রামে মায়ের কবর জিয়ারত করতে আসেন। কবর জিয়ারত শেষে তিনি বাড়ির কাছে মহিষবাথান তিনমাথা এলাকায় একটি দোকানে চা পান করছিলেন। রাত সাড়ে ১২টার দিকে শহরের শিববাটি এলাকার খোকন সরকারের ছেলের সন্ত্রাসী ওমর খৈয়াম সরকার রূপম ওরফে হাতকাটা রূপমের নেতৃত্বে আবদুর রাজ্জাককে ঘেরাও করে।

আরও পড়ুন:  ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

তারা প্রথমে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আবদুর রাজ্জাক সরকারকে কোপ দেয়। তখন তিনি আত্মরক্ষায় ব্যক্তিগত পিস্তল দিয়ে ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে পালানোর চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে তিনমাথা এলাকায় রাস্তায় পড়ে যান। তখন সন্ত্রাসীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে উপর্যুপরি কোপায়। এরপর পিস্তল কেড়ে নিয়ে তার শরীরে গুলি করে বীরদর্পে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের ছেলে শোভন সরকার সাংবাদিকদের জানান, তার বাবা আমেরিকা বসবাস করলেও বগুড়ায় ব্যবসা আছে। বর্তমানে তারা শহরের ইয়াকুবিয়া স্কুল মোড় এলাকায় বসবাস করেন। তার বাবা ঈদের দিন গ্রামে গিয়ে রাতে মহিষবাথান তিনমাথা এলাকায় আড্ডা দিচ্ছিলেন। তখন মোটরসাইকেলে আসা সন্ত্রাসীরা তার বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করে।

এদিকে প্রবাসী আবদুর রাজ্জাককে হত্যার ঘটনায় গ্রামবাসীদের মাঝে প্রচণ্ড ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। তারা হত্যায় জড়িত সন্ত্রাসীদের কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

বগুড়া পুলিশের সূত্র জানায়, গত ২০১০ সালের ৫ জুন রাতে শহরের শিববাটি সেবক সমিতি কার্যালয়ে শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন জুয়েলকে গুলি ও কুপিয়ে হত্যা মামলার প্রধান আসামি চিহ্নিত সন্ত্রাসী ওমর খৈয়াম সরকার রূপম ওরফে হাতকাটা রূপম। বোমা বানানোর সময় বিস্ফোরণে তার হাতের আঙুল উড়ে যায়। একাধিক হত্যা, অস্ত্র আইনসহ কয়েকটি হত্যা মামলার আসামি রূপম কয়েক দফা গ্রেফতার হয়েছিল। সে কাটা আঙ্গুল দিয়েই বুকের সঙ্গে পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করতে পারদর্শী। কিন্তু হাতে আঙুল না থাকায় প্রতিবন্ধী হিসেবে আদালতকে ভুল বুঝিয়ে বার বার জামিন লাভ করে।

সর্বশেষ - বাংলাদেশ

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
Copy link
Powered by Social Snap